কেন ফ্রি কলিং এপগুলো ব্যবহার করবে না



Unlimited Free Calling - TechneSiyam
বর্তমানের এই ইন্টারনেটের যুগে যোগাযোগ ব্যবস্থা খুব বেশি সহজ হয়ে গেছে। আমরা মুহূর্তেই একে অপরের সাথে কথা বলতে পারি মেসেঞ্জারেে চ্যাটের মাধ্যমে। আবার মনের চাহিদা পূরণ করতে অনেক অডিও কল ও ভিডিও কল ব্যবহার করে থাকে।

কিন্তু আমাদের দেশে প্রত্যেকের কাছে এখনও ইন্টারনেট পৌঁছেনি বা অনেকে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারেননা। তাই তাদের সাথে যোগাযোগ করার জন্য আমাদের একমাত্র মাধ্যম হলো "সিম টু সিম" কল করা। যা খুবই ব্যয়বহুল বিশেষ করে যখন গ্রামীণফোন - বাংলালিংক এবং  বাংলালিংক - গ্রামীণফোন  কল করা হয় তখন যেন টাকা হাওয়া হয়ে যায়। তবে আমরা বাঙালি বলে কথা তাই এটার সমাধানও রয়েছে।

আমরা এমন কিছু এপ আবিষ্কার করেছি যেগুলো ফ্রিতে আনলিমিটেড কল করা যায় যেকোন নাম্বারে। দারুন ব্যাপার তাই না? ফ্রি জিনিস কার না পছন্দ?

এই এপগুলো হয়তো তোমরা অনেকেই ব্যবহার করো আবার অনেকেই জানোনা। যা হোক, যদি জেনে থাকো ও ব্যবহার করো তাহলে অনেক বড় ভুল করছো। আর যারা জানোনা তাদেরকে CONGRATULATION তোমরা নিরাপদে আছো। কারণটি বিস্তারিত আকারে বলছি।

প্রথমেই বলি এই এপগুলো কি এবং কিভাবে কাজ করে। কারণবশতই আমি এই এপগুলোর নাম পোস্টে উল্লেখ করছিনা।

এপগুলো কিভাবে কাজ করে?
এই এপগুলো ইনস্টল দেওয়ার পর তোমাকে সেখানে একাউন্ট খুলতে হয়। এপগুলো ব্যবহার করার জন্য তোমার ফোনে ইন্টারনেট সংযোগ থাকতে হবে। তারপর সেখান থেকেই তুমি যাকে কল করতে চাও তার ফোন নাম্বারটি প্রবেশ করিয়ে তাকে কল করতে পারো। এই ধরনের এপগুলোর অনেকটি থেকে বিদেশি নাম্বারেও কল করা যায় যা খুবই লোভনীয়।

এপগুলো থেকে কিভাবে ফ্রি কল করার সুবিধা পাওয়া যায়?
এই এপগুলোতে তুমি যখন একাউন্ট খুলবে তখন তোমাকে কিছু পয়েন্ট দেয়া হয়ে থাকে। কল করার সময় এই পয়েন্টগুলো কেটে নেয়া হবে অনেকটা ব্যালেন্স থেকে টাকা কেটে নেওয়ার মতো। তুমি পরবর্তীতে আবার এই পয়েন্ট আর্ন করতে পারবে। সেটির জন্য এপগুলোতে কিছু টাস্ক সিস্টেম দেওয়া হয়ে থাকে। যেমনঃ এড দেখা, এপ ইনস্টল করা, পেইজে লাইক দেয়া প্রভৃতি।

এপগুলো কেন ব্যবহার করবো না?

  1. এই এপগুলো কোন উন্নত ডেভেলপার দ্বারা তৈরি নয়। এই এপগুলো কিছু "হাঁটু ভাঙা" ডেভেলপার নির্মিত যারা টাকা আয়ের জন্যই এমন এপ তৈরি করেছে।
  2. সবচেয়ে বড় কারণ হলে আপনার প্রাইভেসি। পূর্বেই বলেছি এই ধরনের এপগুলো হাঁটু ভাঙা ডেভেলপার নির্মিত তাই তাদেরকে কখনোই বিশ্বাস করা যায় না। তুমি তোমার জরিনার (গফ বা গার্লফ্রেন্ড) সাথে কথা বলছো কিন্তু পাশে কেউ আরেকজন শুনছে তাহলে তোমার কেমন লাগবে? হ্যাঁ, তাই করতে পারে এই এপগুলো। এই এপগুলো যেকোন সময় তোমার কলগুলো রেকর্ড করতে পারে। তাই একটু ভেবে দেখো তুমি যতো দুষ্টু কথা বলেছো তা হয়তো এতোদিনে অনলাইনের নানা জায়গায় ছড়িয়ে গিয়েছে।
  3. আরেকটি বড় কারণ হলো তোমার তথ্য। তুমি ভাবছো তুমি খুব ভালো কোন দুষ্টু কথা কারো সাথে বলোনা তাহলে তো আমার কোন সমস্যা নেই, তাই না? না, তা সঠিক নয়। ধর তুমি তোমার বাবাকে তোমার নাম্বারে বিকাশ করে টাকা পাঠাতে বলছো। কোন কারণ বশত তুমি বিকাশের সব তথ্য বলে দিলে। কি হবে এখন? শেষ তোমার টাকা শেষ। 
  4. এখন যারা ভাবছো আমি দুষ্টু কথা বলিনা, বিকাশ আমার নেই আমি এপটি ব্যবহার করবোই তাহলে তাদেরকে যে কারণে এপ ব্যবহারে আটকাবো সেটি হলো "সামাজিক নিরাপত্তা"। হ্যাঁ, এপটির কারণে তোমার নিরাপত্তাও চলে যেতে পারে। কি করে ভাই? একটি এপ ব্যবহারে আমার সামাজিক নিরাপত্তা চলে যাবে? হ্যাঁ, যাবে। তুমি যখন তোমার বন্ধুকে বলবে তুমি কোথায় আছো বা কোথায় যাবে তখন যদি কলটি রেকর্ড করে কোন অসাধু লোকের কাছে যায় তখন সে তোমার উপর আক্রমণ করতে পারে। এরকম চুরির ঘটনা ফেসবুকের কারণে প্রায়শই বিদেশে হয়ে থাকে (যদিও বাংলাদেশে এমন তথ্য এখনো জানা যায়নি)।
  5. সর্বশেষ কারণটি হলো ম্যালওয়ার। এরকম এপগুলোকে এমনভাবেও বানানো হতে পারে যাতে এগুলো ম্যালওয়ারের মতো কাজ করে। অর্থাৎ এই এপগুলো তোমার ফোন থেকে নানা তথ্য চুরি করতে পারে বিশেষ করে তোমার ছবি ও ভিডিও। তাছাড়া অনেক এপ তোমার কন্টাক্ট পার্মিশনও নিয়ে থাকে যার ফলে তোমার কন্টাক্টেে থাকা সকল নাম্বার তাদের কাছে চলে যেতে পারে। 


ফেসবুক, গুগলের মতো প্রতিষ্ঠানগুলো যেখানে এতো অনিরাপদ সেখানে এই রকমের এপগুলো ব্যবহার করে নিজের তথ্যকে ও নিজেকে বিপদে ফেলোনা।  আশা করি বুঝতে পেরেছ।



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন


0 মন্তব্যসমূহ